মানবকল্যাণে বিজ্ঞান প্রবন্ধ রচনা [PDF]

লিখেছেন: Rakesh Routh

banglarachana.com এ আপনাকে স্বাগতম। পঞ্চম শ্রেণী থেকে দ্বাদশ শ্রেণী পর্যন্ত বাংলা সিলেবাসের সমস্ত ব্যাকরণ গুরুত্বপূর্ণ রচনা ভাবসম্প্রসারণ সমস্ত কিছু PDF সহ পাওয়ার জন্য আমাদের সঙ্গে যুক্ত থাকুন।পরীক্ষায় সম্ভাব্য গুরুত্বপূর্ণ সমস্ত প্রবন্ধ রচনা তুলে ধরার চেষ্টা করি আমরা।তাই এখানে নেই এমন রচনা পাওয়ার জন্য রচনার নাম অবশ্যই কমেন্ট করে জানাবেন।

চিকিৎসা হোক বা কৃষিকাজ সকল ক্ষেত্রে বিজ্ঞানের কল্যাণময় অবদান অপরিসীম।আমাদের দৈনন্দিন জীবনে সবকিছুর সাথে যুক্ত রয়েছে বিজ্ঞান।বিজ্ঞান ছাড়া এক মুহুর্ত চলার উপায় নাই।সে নিয়েই আজকের বিষয় মানবকল্যাণে বিজ্ঞান প্রবন্ধ রচনা।

মানবকল্যাণে বিজ্ঞান প্রবন্ধ রচনা বৈশিষ্ট্য চিত্র

ভূমিকা:

বর্তমান যুগে বিজ্ঞান এক আলাদা পর্যায়ে পৌঁছে ‌গেছে। সমগ্র বিশ্ব তথা মানব জাতির কল্যাণে বিজ্ঞানের অবদান অনস্বীকার্য। এক কথায় আমাদের এই যুগ এক যুগান্তকারী যুগ যেখানে মানব জাতি বিজ্ঞানের ক্রমাগত অব্যাহত জয় যাত্রার সম্মুখীন হয়েছে‌ এবং ক্রমাগত হয়ে চলেছে।

এক সময়ে  মানুষ ছিল অরণ্যচারী এবং গুহাবাসী। কিছুই বুঝতে পারত না,‌‌ প্রকৃতির কাছে ‌অবলা ছিল। আজ তারাই ভূপৃষ্ঠের মাধ্যাকর্ষন শক্তিকে হার মানিয়ে মহাকাশে পাড়ি দিয়েছে, ছুটে চলেছে গ্রহ থেকে গ্রহান্তরে।

দূর দূরান্তের যাত্রাপথকে অল্প সময়ের মধ্যে সম্ভব‌পর করে তুলেছে। বিজ্ঞান মানব সভ্যতাকে অসীম সম্ভাবনার অপ্রতিরোধ্য জয়যাত্রার সম্মুখীন করেছে।

বিজ্ঞানের ইতিহাস:

প্রাচীনকালে যখন গুহাবাসী মানুষ প্রথম আগুন জ্বালাতে শেখে তখনই তাদের বৈজ্ঞানিক আবিষ্কার শুরু। তারপর মানুষ যত বেশী বাঁধা বিপত্তির সম্মুখীন হয়েছে ততই নিজ প্রয়োজনে বিজ্ঞানের উদ্ভব হয়েছে।

বিজ্ঞানের গুরুত্ব:

সেই প্রাচীনকাল থেকেই মানুষ বিজ্ঞান নির্ভর। দৈনন্দিন জীবনের প্রতিটি ক্ষেত্রে বিজ্ঞানের অবদান অনস্বীকার্য। সকাল বেলা ঘুম থেকে উঠে ব্রাশ করা থেকে শুরু করে ‌রাত্রে ঘুমোনো অব্দি সবই বিজ্ঞানের অবদান।

রান্নাঘরের গ্যাস ওভেন, ইলেকট্রিক কেটলি থেকে শুরু করে নিত্যপ্রয়োজনের প্রতিটি সাজ সরঞ্জাম সবই বিজ্ঞানের অবদান ।  জীবনের প্রতিটি পদক্ষেপে এর অবদান রয়েছে। এছাড়া বিনোদনের সামগ্রী রেডিও, টেলিভিশন, খবরের কাগজ, টেলিফোন থেকে শুরু করে টেপরেকর্ডার, ক্যালকুলেটর, সবই বিজ্ঞান দিয়েছে ।

নানা রকমের আধুনিক যানবাহনের আবিষ্কারের ফলে আমাদের জীবন যাত্রায় এসেছে গতি । দ্রুতগামী বাস, মোটর, ট্রেন, এরোপ্লেন, সবই বিজ্ঞানের অবদান । আজকের কর্মব্যস্ত মানুষ বিজ্ঞান ছাড়া একপাও এগোতে পারে না ।

মানব কল্যাণে বিজ্ঞানের বহুমুখী দিক:

মানব কল্যাণে বিজ্ঞানের বহুবিধ অবদান আছে। কৃষিক্ষেত্রে, চিকিৎসাক্ষেত্রে, যাতায়াত ও যোগাযোগ ব্যবস্থার ক্ষেত্রে, আবহাওয়ার পূর্বাভাস জানতে বিজ্ঞানের অবদান অনস্বীকার্য।

i) কৃষিক্ষেত্রে বিজ্ঞান:

পূর্বে মানুষ উর্বর জমি খুঁজত কৃষি কাজ করার জন্য। কিন্তু বিজ্ঞান সেই কৃষিক্ষেত্রে এনেছে বিরাট পরিবর্তন। ট্রাক্টর সহ বিভিন্ন সরঞ্জাম আবিষ্কার কৃষিক্ষেত্রে এনেছে বৈপ্লবিক পরিবর্তন। এখন‌ আর মানুষকে সেচ থেকে জল তুলে আনতে হয় না, মোটর বা পাম্প ব্যবহারের দ্বারা সহজেই তা‌ সম্ভব হয়ে ওঠে।

কৃষকরা ফসল‌কে পোকামাকড় ও পঙ্গপালের হাত থেকে রক্ষা করতে কীটনাশক ব্যবহার করে। বিজ্ঞানীরা বর্তমানে উন্নত মানের অধিক উৎপাদনে‌ সক্ষম এমন ধরনের বীজ তৈরী করছেন। ফলে‌ অসময়ে ফসল উৎপাদন সহজ হয়ে উঠেছে। রাজস্থানের মত যে সমস্ত এলাকায় বৃষ্টির অভাব সেই সমস্ত জায়গায় বিজ্ঞানের সহায়তায় কৃত্রিম উপায়ে বৃষ্টিপাত ঘটিয়ে কৃষি কাজ করা সম্ভব হচ্ছে।

ii) চিকিৎসা ক্ষেত্রে বিজ্ঞান:

চিকিৎসাক্ষেত্রেও বিজ্ঞানের অবদান কম নয়। কৃষিক্ষেত্রের পাশাপাশি চিকিৎসাক্ষেত্রেও এটি গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা পালন করেছে। জন্মপূর্ব রোগ নির্ণয়, জিন প্রতিস্থাপন প্রভৃতি চিকিৎসা প্রায়োগিক ক্ষেত্রে এর অবদান আছে।

কর্নিয়া, বৃক্ক, অস্হিমজ্জা, হৃদপিন্ড, যকৃত ও ফুসফুসের মত অঙ্গ প্রতিস্থাপনে এর প্রভাব অভাবনীয়। চিকিৎসাক্ষেত্রে ফাইবার অপটিকস্ ব্যবহারের ফলে বিভিন্ন প্রকার অঙ্গের সঠিক অবস্থান জানা যায় ও ক্যান্সার রোগ নির্ণয় করা যায়। এই ক্ষেত্রে লেজারের ব্যবহার অনস্বীকার্য। পিত্তকোষের পাথর ভাঙতেও এর অবদান রয়েছে।

iii) যোগাযোগ ও পরিবহনে বিজ্ঞান:

বিজ্ঞানের দরূন আজ দূরত্ব কোনো চিন্তার বিষয় নয়। এর সাহায্যে মানুষ বুলেট ট্রেন, দ্রুতগামী যানবাহন, শব্দাতিগ উড়োজাহাজ আবিষ্কার করেছেন। তাই আজ যেমন পৃথিবীর দুপ্রান্তের মানুষের কাছে দূরত্ব কোনো চিন্তার বিষয় নয় তেমনি যোগাযোগ ব্যবস্থার উন্নয়ন বিজ্ঞানকে এক আলাদা পর্যায়ে পৌঁছে দিয়েছে।

টেলিভিশন, ফ্যাক্স, রেডিও, ই-মেইল প্রভৃতির মাধ্যমে মানুষদের জন্য একে অপরের সঙ্গে যোগাযোগ রাখা খুবই সহজ হয়ে পড়েছে। স্যাটেলাইট দ্বারা আজ যে কোনো প্রান্তের মানুষের কাছে যোগাযোগ ব্যবস্থা সহজ হয়ে উঠেছে।

iv) শিক্ষাক্ষেত্রে বিজ্ঞান:

শিক্ষাক্ষেত্রে যে সমস্ত উপাদান আছে তা সবই হল বিজ্ঞানের অবদান। আজ যেমন রেডিও, টেলিভিশন ইত্যাদীর মাধ্যমে শিক্ষার প্রসার ঘটানো সম্ভব হয়েছে, তেমনি ইন্টারনেট পরিষেবা আজ শিক্ষায় সুদূর প্রভাব ফেলেছে। বর্তমান সময়ে ছাত্র ছাত্রীরা তাদের নিজস্ব সময়মত জ্ঞান অর্জন পারে।

v) আবহাওয়া ও প্রাকৃতিক দূর্যোগে বিজ্ঞান: 

মানুষ চিরকালই প্রকৃতির দাস হয়ে থাকবে। প্রাকৃতিক দুর্যোগকে আটকানো কোনো দিনই সম্ভব নয়, তবে আমরা যা করতে পারি তা হল পূর্বাভাস জেনে উচিত ব্যবস্থা নেওয়া। এর ফলে আমরা ঘূর্ণিঝড়, জলোচ্ছ্বাস ইত্যাদি প্রাকৃতিক দুর্যোগের মোকাবিলা করতে সক্ষম হব।

কৃত্রিম উপগ্রহের সাহায্যে আমরা আজ ৭-৮ দিন আগে থেকেই দুর্যোগের পূর্বাভাস জানতে পারি। এছাড়া কৃত্রিম উপগ্রহের মাধ্যমে মানুষরা আজ খনিজ সম্পদ, তেল ও গ্যাসের উৎস, মাটির উপাদান ও জলজ সম্পদ সম্পর্কেও জানা গেছে।

vi) অন্যান্য উপকারী দিক:

এছাড়া বড় বড় কলকারখানায় বিভিন্ন ধরনের যন্ত্রপাতি ব্যবহার করা হয় যা কাজের অগ্রগতিকে আর ও দ্রুত করে দেয়। তাছাড়া দেশের সীমান্তে ভারতীয় সেনাবাহিনীর কাছে থাকা প্রতিরোধমূলক যন্ত্রপাতি অন্যান্য দেশের আক্রমণ থেকে রক্ষা করে।

উপসংহার: 

"বিজ্ঞান যেন এ যুগের তিলোত্তমা স্বরূপিনী যার এক হাতে আছে অমৃত ভান্ডার কিন্তু তার নয়ন কটাক্ষে প্রলয় ঘটে যায়।"

বিজ্ঞানের অবদান অনস্বীকার্য থাকা সত্ত্বেও কিছু ক্ষেত্রে এর ক্ষতিকর প্রভাব রয়েছে। বিভিন্ন ধরনের বোমা, বন্দুক, তেজস্ক্রিয় পদার্থ আবিষ্কার মানব জাতিকে ধ্বংসের মুখে ঠেলে দিচ্ছে। তাই বিজ্ঞানের অপব্যবহার কমাতে হবে এবং এর জন্য সব ধরনের মানুষদেরকে এগিয়ে আসতে হবে।


মানবকল্যাণে বিজ্ঞান প্রবন্ধ রচনাটি পড়ে আপনার কেমন লাগলো কমেন্ট করে জানাবেন।আপনার একটি কমেন্ট আমাদের অনেক উৎসাহিত করে আরও ভালো ভালো লেখা আপনাদের কাছে পৌঁছে দেওয়ায় জন্য।বানান ভুল থাকলে কমেন্ট করে জানিয়ে ঠিক করে দেওয়ার সুযোগ করে দিন।সম্পূর্ণ রচনাটি পড়ার জন্য আপনাকে অনেক অনেক ধন্যবাদ।

Print Friendly, PDF & Email
লেখক পরিচিতি
Rakesh Routh
রাকেশ রাউৎ বাংলা রচনা ব্লগের নির্বাহী সম্পাদক। ইনি শিক্ষাগত যোগ্যতা অনুযায়ী একজন মেকানিকাল ইঞ্জিনিয়ার। ইনি বাংলা রচনার সম্পাদকীয় দলকে লিড করেন। রাকেশ দীর্ঘ ৫ বছর যাবৎ বাংলা কনটেন্ট এডিটিং এর সাথে যুক্ত আছেন। ইনি বাংলা রচনা ছাড়াও নামকরণ এবং বাংলা জীবনীর মতো নামকরা সাইটের সম্পাদকীয় দলের একজন অন্যতম সদস্য।

পরবর্তী পড়ুন

আমার প্রিয় শিক্ষক রচনা [সঙ্গে PDF]

আমাদের প্রত্যেকের বিদ্যালয়ে অনেক শিক্ষক থাকেন, তাঁরা প্রত্যেকেই আমাদের শিক্ষাদানের মধ্য দিয়ে জীবনের সঠিক পথ প্রদর্শনে সহয়তা করেন। তাঁরা প্রত্যেকেই […]

জাতির জনক বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান রচনা [সঙ্গে PDF]

বাংলাদেশের স্বাধীনতা আন্দোলনে দেশের সমস্ত মানুষকে ঐক্যবদ্ধ করতে যিনি অন্যতম ভূমিকা পালন করেছিলেন তিনি আর কেউ নন,বাঙালি জাতির জনক বঙ্গবন্ধু […]

উন্নয়ন বনাম পরিবেশ রচনা [সঙ্গে PDF]

মানুষ যেদিন প্রথম পাথরে পাথর ঘষে আগুন জ্বালাতে শিখেছিল সেদিন থেকেই শুরু হয়েছিল এক পরিবেশ বনাম উন্নয়ন নামের এক মহাযুদ্ধ। […]

ছাত্র সমাজ ও রাজনীতি বা ছাত্রজীবনে রাজনীতি রচনা [সঙ্গে PDF]

ছাত্ররাজনীতি আসলে ভালো নাকি মন্দ তা নিয়ে বিতর্কের অন্ত নেই। ইতিহাস খুঁজলে দেখা যাবে বিগত এক শতাব্দী ধরে রাজনীতির নামে […]

বাংলার সংস্কৃতি রচনা [সঙ্গে PDF]

সভ্যতা ও সংস্কৃতি, আমাদের জীবনের এই দুটি অংশ পরস্পরের সঙ্গে এমনভাবে জড়িয়ে রয়েছে যে তা বিশ্লেষণ করা যায় না।সভ্যতার ক্রমবিকাশের […]

ভারতের স্বাধীনতা দিবস রচনা [সঙ্গে PDF]

ভারতমাতার বহু বীর সন্তান অনেক রক্তের বিনিময়ে দীর্ঘ সংগ্রামের পর স্বাধীনতা এনে দিয়েছেন আমাদের। ১৯৪৭ খ্রিস্টাব্দের ১৫ ই আগস্ট ইংরেজ […]

One comment on “মানবকল্যাণে বিজ্ঞান প্রবন্ধ রচনা [PDF]”

মন্তব্য করুন

আপনার ই-মেইল এ্যাড্রেস প্রকাশিত হবে না। * চিহ্নিত বিষয়গুলো আবশ্যক।

Proudly Owned and Operated by Let Us Help You Grow Online ©️