দেখে নিন ইংরেজিতেও রচনা

নৈতিক শিক্ষা ও মূল্যবোধ প্রবন্ধ রচনা [PDF]

সভ্য সমাজে বসবাস করতে আমাদের সমাজের কিছু রীতি নীতি অনুসরণ করতে হয়।এই সমস্ত রীতি নীতিই সমাজে অশান্তকর পরিবেশ সৃষ্টিতে বাঁধা দেয়।সামাজিক ও সাংস্কৃতিক সংঘাত মুক্ত পরিবেশ গড়ে তুলতে নৈতিক শিক্ষা ও মূল্যবোধ একান্ত প্রয়োজন। এ নিয়ে আজকের বিষয় নৈতিক শিক্ষা ও মূল্যবোধ রচনা।

নৈতিক শিক্ষা ও মূল্যবোধ রচনা বৈশিষ্ট্য চিত্র

ভূমিকা:

আমাদের এই বৃহৎ জগতে প্রায় ৭০০ কোটি মানুষের বসবাস। ছোট-বড় নানান রকম দেশ মানুষের বসবাসের জন্য উপযুক্ত। সেই সমস্ত দেশে রয়েছে বিভিন্ন ধরণের সংস্কৃতি ও শিক্ষাব্যবস্থা। এইসকল শিক্ষা ও সংস্কৃতি বাবস্থাপনাগুলি অন্যান্য দেশের থেকে ভিন্ন অথচ সেগুলি যুগ যুগ ধরে টিকেও আছে।

সেই সমস্ত সংস্কৃতি বজায় থাকার পেছনে মূল কারণ হলো সেই সমাজ-সংস্কৃতির নির্দিষ্ট কিছু নিয়ম-নীতি ও মূল্যবোধ যেগুলো মানুষ মেনে চলে ও সহজেই পালন করে।‌ যার ফলে আমাদের সমাজে কোনো অশান্তকর পরিবেশ সৃষ্টিতে বাধা পায়।

এই নৈতিকতা ও মূল্যবোধ আমাদের সমাজকে সকল প্রকার সামাজিক ও সাংস্কৃতিক সংঘাত থেকে দূরে সরিয়ে রাখে। তার ফলে মানুষ তাদের নিজ নিজ সমাজে শান্তি ও সমৃদ্ধি নিয়ে বেঁচে থাকে।

তবে মানুষকে সবচেয়ে বেশী যা বিস্মৃত করে তা হল মানুষের মূল্যবোধের ক্রমিক অবনমন। কেননা যে মানুষ পৃথিবীতে এসে স্বর্গ রচনা করেছিল নানান ভাবে, সেই সমস্ত মানুষের মধ্যে কারোর আবার ক্রমিক অবনমন স্তম্ভিত করার মতো।

এটাও সত্যি যে মানুষের প্রতি বিশ্বাস হারানো পাপ, তবুও নিত্য নৈমিত্তিক মানুষের এই মনুষ্যত্বহীনতা ও মূল্যবোধের অবক্ষয় আমাদের পীড়িত করে।

নৈতিক শিক্ষা ও মূল্যবোধ কি:

নৈতিকতা বলতে এক কথায় বোঝায় নীতি সম্পর্কিত বোধ। এটি হল এক  মানবিক গুণাবলী যা‌ বহু গুণের সমন্বয়ে গঠিত। সমস্ত মানুষ তার পরিবার, পারিপার্শ্বিক পরিবেশ,  সমাজ, রাষ্ট্র ও ধর্মের ওপর ভিত্তি করে সুনির্দিষ্ট কিছু নিয়ম নীতি মেনে চলে।

সমাজ বা রাষ্ট্র আরোপিত এই সব নিয়মনীতি মানুষের জীবনে প্রভাব ফেলে। এই সমস্ত নিয়মগুলো মেনে চলার প্রবণতা, মানসিকতা, নীতির চর্চাই হলো নৈতিকতা। অন্য দিকে অনেকে মনে করেন যে নৈতিকতা ও মূল্যবোধ দুই-ই এক।

কিন্তু আসলে তা নয়। মানুষের প্রধান পরিচয় তার মনুষ্যত্ববোধ। আজকের আধুনিক মানুষ শুধু ‌স্বার্থপরতা নিয়েই বেঁচে আছে। এর ফলে কখনোই মূল্যবোধ‌ গড়ে উঠতে পারে না। এর জন্য চাই ঐক্যবদ্ধতা। মূলত মানবিক অভিজ্ঞতা থেকেই মূল্যবোধ গড়ে ওঠে। এর মূল ভিত্তি হল ধর্ম, দর্শন,  সমাজের নিজস্ব আদর্শ ও নিয়মনীতি।

নৈতিক মূল্যবোধ অবক্ষয় ও তার কারণ:

পৃথিবীতে কোনো মানুষই পাপী কিংবা অপরাধী হয়ে জন্মায় না। তাদের পারিপার্শ্বিক অবস্থা বা সমাজ ব্যবস্থাই তাদেরকে ভালো কিংবা খারাপ করে তোলে। এই অবক্ষয়ের কারণগুলো হলো:

  • বিশ্ব যুদ্ধ ও তার বিভীষিকা, ধর্ম ও ঈশ্বর বিশ্বাসের সাময়িক পরিবর্তন, দুর্ভিক্ষ, মহামারী, প্রাকৃতিক দুর্যোগ, লোকসংখ্যা বৃদ্ধি – এসবই মানুষের অবস্থার অবক্ষয়ের কারণ।
  • মানুষের কাছে প্রকৃত আদর্শের অভাব তার অন্যতম কারণ।
  • আগে ছেলে মেয়েরা একান্নবর্তী পরিবারে মানুষ হত। কিন্তু তাদের মধ্যে অনেকে এখন একাকীত্ব পছন্দ করে যার‌‌ ফলে নৈতিকতার অবক্ষয় ঘটছে।

নৈতিক মূল্যবোধ অবক্ষয়ের ফলাফল:

শতাধিক তরুণ-তরুণী, কিশোর-কিশোরী এই অবক্ষয়ের কারণে নিজেদেরকে ঠেলে দিয়েছে অন্ধকারের পথে। ছিনতাই, অপহরণ, গুম, খুন, হানাহানি, নোংরা রাজনীতি আর সন্ত্রাসে মনুষ্য জীবন প্রতিনিয়ত জড়িয়ে যাচ্ছে। নিজেদের উজ্জ্বল ভবিষ্যতকে গলা টিপে হত্যা করে মূল্যবোধ আর নৈতিকতাকে নিজ হাতে বিসর্জন দিয়ে সমস্ত মানুষ আজ অগ্রসর হচ্ছে ধ্বংসের পথে।

নৈতিক অবক্ষয় রোধের উপায়:

  • ন্যায়-অন্যায় বোধের জাগরণ এবং শাস্তি ও‌ পুরস্কারের নীতি কঠোর ভাবে পালন করতে হবে।
  • মনুষ্যত্ববোধের জাগরণ যাতে‌ ঘটে সেই দিকে ইতিবাচক ভূমিকা গ্রহণ করতে হবে। কারণ একটি গাছ যে মাটিতে জন্ম গ্রহণ করল সেই মাটিকেই যদি ছায়া না‌ প্রদান করে তাহলে তার জন্মানোটাই বৃথা হয়ে যাবে।
  • সমাজে সামাজিক বন্ধনের শৃঙ্খল রচনা করতে হবে। এর জন্য পাড়ায় পাড়ায়  সচেতনমূলক রচনা করা যেতে পারে।
  • যুব সমাজের মধ্যে কর্মমুখী চেতনা ফিরিয়ে এনে সংগ্রামী মনোবৃত্তি গড়ে তুলতে হবে।
  • পিতা-মাতা, শিক্ষক-শিক্ষিকার আদর্শ মেনে চলতে হবে।
  • মানুষ আজকাল অনেক বেশী বাহ্যিকতায় ও বস্তুবাদীতায় পর্যবসিত হচ্ছে, তাদের আত্মিক পরিবর্তনের দিকে প্রয়াসী হতে হবে।

উপসংহার:

যে মানুষ মনুষ্যত্বহীনতা হারিয়ে ফেলে শুধু স্বার্থপর হয়ে ওঠে তারা হয় নিঃসঙ্গ ও বিচ্ছিন্ন। সেই একাকীত্বের যন্ত্রনায় ক্ষত বিক্ষত হচ্ছে আজকের বেশীরভাগ মানুষ। মানুষ আজ কি করবে সেই নিয়ে সত্যি খুব দ্বন্দ্বে দিন কাটাচ্ছে। ক্রমশই অর্থ সম্পদে বলীয়ান হয়ে উঠলেও‌ তাদের নৈতিক সম্পত্তি লুঠ হচ্ছে।

দেশে দেশে প্রাকৃতিক সম্পদের উৎস সন্ধান করা হচ্ছে কিন্তু মানুষের চারিত্রিক সম্পদের উৎসকে খুলে দিলে মানুষ যে কত বড় সমৃদ্ধ হয়ে উঠবে সেটা যদি‌ কোনো মানুষ একবার উপলব্ধি করতে সক্ষম হয় তাহলেই সমাজের সার্বিক নৈতিকতার উন্নয়ন এবং মানুষের মধ্যে সামাজিক মূল্যবোধের জাগরণ সম্ভব। 


নৈতিক শিক্ষা ও মূল্যবোধ প্রবন্ধ রচনাটি পড়ে আপনার কেমন লাগলো কমেন্ট করে জানাবেন।আপনার একটি কমেন্ট আমাদের অনেক উৎসাহিত করে আরও ভালো ভালো লেখা আপনাদের কাছে পৌঁছে দেওয়ায় জন্য।বানান ভুল থাকলে কমেন্ট করে জানিয়ে ঠিক করে দেওয়ার সুযোগ করে দিন।সম্পূর্ণ রচনাটি পড়ার জন্য আপনাকে অনেক অনেক ধন্যবাদ।

Print Friendly, PDF & Email
English Essay, Autobiography, Grammar, and More...

Rakesh Routh

আমি রাকেশ রাউত, পশ্চিমবঙ্গের ঝাড়গ্রাম জেলায় থাকি। মেকানিকাল বিভাগে ডিপ্লোমা করেছি, বাংলায় কন্টেন্ট লেখার কাজ করতে ভালোবাসি।তাই বর্তমানে লেখালেখির সাথে যুক্ত।

মন্তব্য করুন

আপনার ই-মেইল এ্যাড্রেস প্রকাশিত হবে না। * চিহ্নিত বিষয়গুলো আবশ্যক।

 

Recent Content